অফিস খোলা রেখে পরিবহন বন্ধ, চরম ভোগান্তিতে সাধারন মানুষ!

অফিস খোলা রেখে পরিবহন বন্ধ, চরম ভোগান্তিতে সাধারন মানুষ!

আজ সোমবার,সারাদেশে কঠোর লকডাউন শুরু হয়ে গেছে ইতিমধ্যে।সব গার্মেন্টস কারখানা বা অফিস খোলা কিন্তু পর্যাপ্ত পরিমান যানবাহন নেই। রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে হাজার হাজার পথ-যাত্রীদের।

 

বিস্তারিত

কোন ব্যাক্তিগত গাড়ি বা সিএনজি অটো-রিসকা দেখলেই ঝাপিয়ে পড়ছেন সবায়।গন্ত্যব্যে যেতে স্বাভাবিক এর তুলনায় পাঁচ থেকে দশ গুন ভাড়া হাকায় হতাশ হয়ে আবার ও অপেক্ষা।অফিস খোলা রেখে এরকম লকডাউন সাধারন মানুষের কাম্য নয়। লকডাউনের প্রথম দিনেই রাজধানী তো বটেই,এই আশ-পাশের এলাকাগুলো ছিলো একই রকম চিত্র।রাস্তা-ঘাটে ছিলোনা কোন যাত্রীবাহী বাস তাই স্বাভাবিক ভাবেই স্বল্প আয়ের বিভিন্ন শ্রেনিপেশার মানুষ পড়েছে মহা বিপাকে।ঘন্টার পর ঘন্টা ডারিয়ে থাকার পর যানবাহন না পেয়ে দুপায়ের উপর ভরসা রেখে ছুটে চলছেন খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ।

 

এই বিষয়ে রাস্তায় কিছু যাত্রীদের সাথে কথা বলে যানা গেছে “অফিস এ যেতে হবে কিভাবে যেতে হবে সেটা কোম্পানি দেখবেনা চাকরি বাঁচাতে হলে অফিস এ যেতেই হবে” সোর্স সময় টিভিএদিকে দুরপারলার বাস বন্ধ থাকায় অবাধে যাত্রী পরিবহন করতে দেখা গেছে বিভিন্ন ব্যাক্তিগত গাড়িতে।গাদাগাদি আর শাস্থবিধির তোয়াক্কা না করে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝায় করে ঢাকা ছেড়েছেন মানুষ।ঢাকা থেকে বগুড়া যেতে যেখানে ভাড়া লাগে ৩০০-৪০০ টাকা সেখানে তারা ভাড়া নিচ্ছে ১৮০০ টাকা।তাদের এই বিষয়ে জিজ্ঞেসা করলে বিভিন্ন অজুহাত দেখায় কেউ বলে বাবা অসুস্থ আবার কেউ বলে বাবা অসুস্থ।অফিস খোলা রেখে লকডাউন দেওয়াতে সাধারন মানুষের রাগ দুঃখ এবং অভিমান,এমন্টাই জানা গেছে তাদের সাথে কথা বলে।

 

এদিকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাসি চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।পুলিশ বলছেন সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কাজ করছেন তারা।আগামি ১ জুলাই পর্যন্ত চলবে এই লকডাউন।

লকডাউনের বিস্তারিত খবর

 

পারভেজ মোশারফ

প্রতিনিধিঃগাজিপুর ঢাকা বাংলাদেশ

 

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.