করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া

করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া #indianeedsoxygen

করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে কি পরিমান বেড়েছে সেটা আমরা সবায় নিজ চোখেই দেখছি । করোনা মহামারীতে সারা বিশ্ব সহ ভাল নেই ভারত । ইন্ডিয়া সহ পাকিস্থানে ও সবায় ব্যাবহার করছে #indianeedsoxygen এই হ্যাসট্যাগ

 

কেমন অবস্থা ইন্ডিয়া তে ?

কোভিড ১৯ ইন্ডিয়া তে যে পরিমান ভয়ংকর রূপ নিয়েছে তাতে নাজেহাল ইন্ডিয়া । শ্মশানে ও জায়গা নেই ! লাশ নিয়ে শ্মশানের বাহিরে দাঁড়িয়ে সারি সারি এম্বুল্যান্স । প্রিয়জনেরা অপেক্ষা করছে শেষকৃ্ত্যের । শ্মশানের বাহিরে লাশের মিছিল থাকায় যেতে হচ্ছে খোলা ময়দানে ও । সেখানে ও জ্বলছে চিতা এবং পুড়ছে করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে মারা যাওয়া মৃতদের লাশ । শুধু শ্মশানে নয় , দিল্লির কবরস্থানের অবস্থা ও এক ই । মরদেহ সমাহিত করার জায়গা পেতে হিমসিম খাচ্ছে করোনায় মৃতের পরিবারগুলো । তাদের দেশের এক ডাক্তার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন এবং চিন্তিত । কারন বর্তমানে করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে অনেক ভয়ানক রূপ নিয়েছে যা অনান্য দেশের চেয়ে অনেক ভয়াবহ । অন্য দেশের তুলনায় করোনা ভাইরাস ভারতে বেশি বিস্তার লাভ করছে । ইন্ডিয়া তে করোনা রোগিদের বেশির ভাগের ই অক্সিজেন এর প্রয়োজন হচ্ছে যা দিতে হিমসিম খাচ্ছে ইন্ডিয়া

 

হাসপাতাল এর অবস্থা

বলতে গেলে হাসপাতালের অবস্থা খুব ই বাজে । ইন্ডিয়া তে সরকারি বা বেসরকারি হাসপাতালে কোন বেড খালি নেই এমন কি অক্সিজেন এর ও সরবরাহ নেই । মানুষ প্রিয়জনের কষ্টে এবং তাদের হারানোর শঙ্কায় কাদছেন । হাসপাতালে ডাক্তার নার্সদের কাছে লোকজন পরিবারে সদস্যদের একটু দেখার এবং যত্ন নেওয়ার আকুতি জানাচ্ছে । জানা গেছে এক নারী তার স্বামী কে নিয়ে দীর্ঘ ১০ ঘন্টা এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ঘুরেছেন । পরে একটি হাসপাতাল তার অসুস্থ স্বামী কে গ্রহন করে । সব হাসপাতালে একই সমস্যা , বেড খালি নেই এবং অক্সিজেন নেই ।

 

করোনার রেকর্ড

গত ২৩ এপ্রিল  দৈনিক করোনা আক্রান্তে রেকর্ড গড়েছে ভারত । সেদিন মোট করোনা রোগী সনাক্ত হয় ৩ লক্ষ ৩২ হাজার ৭৩০ জন , এর মধ্যে দিল্লিতেই আক্রান্ত হয়েছে ২৬ হাজার ১৬৯ জন । এই ফেব্রুয়ারি তে সর্বনিম্ন সংক্রামণ এর রেকর্ড গড়ার পরেই আবার আক্রান্তের দিক থেকে বিশ্বরেকর্ড গড়লো ভারত । গত ৮ই জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের যে বিশ্বরেকর্ড হয়েছিলো , বর্তমানে ভারত সেই সংখ্যা কে ও ছাড়িয়ে গিয়েছে । তবু ও ভারতে টেস্টিং কিটের স্বল্পতা রয়েছে ,  তাই বর্তমান আক্রান্তের সংখা প্রকৃতপক্ষে আরো বেশি হতে পারে । গত মাসে ভারতের শাস্থ মন্ত্রালয় জানায় তারাকরোনা ভাইরাসের মোট ৭৭১ টি ধরন পেয়েছে । এর মধ্যে লন্ডন , দক্ষিন-আফ্রিকা ও ব্রাজিল এর ‘ডাবল মিউট্যান্ট’ ধরন ও রয়েছে । এ সব ধরনের করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে দেখা মিলেছে ।

 

বর্ডার বন্ধ

করোনা ভাইরাস এর প্রকপে বিভিন্ন দেশ তাদের বর্ডার বন্ধ করে দিয়েছে । বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত বন্ধ করা হয়েছে ১৪ দিনের জন্যে এছাড়া ও সিঙ্গাপুর তাদের বর্ডার সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়েছে । ধারনা করা যাচ্ছে কিছুদিনের মধ্যে সব দেশ ই তাদের বর্ডার বন্ধ করে দিবে । করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে দিন দিন বেড়েই চলছে ।

 

করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন

আমরা সবাই জানি ভারত কিন্তু বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক ।ঙ্গত বছর থেকে দেশ টি বিশ্বের ৯০ টির ও ওধিক দেশে ভ্যাকসিন প্রদান করেছে । ভারতের তৈরি ভ্যাকসিন পৃথিবীকে রক্ষা করবে , তাদের বিভিন্ন পত্রিকায় এরকম হেড-লাইন ও দেখা গেছে । কিন্তু আজ কোভিড ১৯ বা করোনা ভাইরাস পৃথিবীকে এমন ভাবে গ্রাস করে নিয়েছে যে , এখন ভ্যাকসিন তাদের ই সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন ।

 

কেনো ভারতে এমন টা ঘটছে

করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে যে পরিমান ছড়াচ্ছে তাতে দেশের মানুষ-জন দিশেহারা হয়ে পড়েছে । সবচেয়ে লক্ষনীয় বিষয় হলো , লোকজন এখনো গনজমায়াতে বা বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছে ! কয়েক্মাস আগে ও স্বল্প সংখক আক্রান্ত দেখে লোকজন ভেবে নিয়েছিলো করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া থেকে বিদায় নিয়েছিলো । এখান থেকে আমরা একটা গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা লাভ করতে পারি । কোভিড ১৯ এখনো পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়নি , বরং এটি দিন দিন নিয়ন্ত্রনের বাহিরে চলে যাচ্ছে । এবং বর্তমান কিছু দেশ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এর কবলে পড়েছে , তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছে ইন্ডিয়া । যা অন্য সময়ের চেয়ে ভয়ানক । ভারতের অধিকাংশ মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো , মেনে চলছিলোনা কোন শারীরিক দূরত্ব ।অনেকে আবার বিভিন্ন উৎসব , ধর্মীয় অনুষ্ঠান এবং রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ এ অংশগ্রহন করেছিলো । লোকজনের অসচেতনতা এবং এই ভাইরাসের প্রতি উদাসিনতাই শেষ পর্যন্ত সমগ্র দেশের জন্যেই কাল হয়ে দাড়িয়েছে ।

 

ভ্যাকসিন প্রদান

করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে শনাক্তের হার দিন দিন বেড়েই চলছে । এখন পর্যন্ত ভারতের মোট মনসংখ্যার মাত্র ১% এর কিছু বেশি মানুষকে ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে । বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক দেশটির সবায় ভ্যাকসিন পাওয়া থেকে এখনো অনেক দূরে রয়েছে ! বিশ্বাস করতে কষ্ট হলে ও  ১ বছর পর কোভিড ১৯ আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী এবং ভয়ংকর রূপ নিয়েছে , এবং এটি হেলাফেলার কোন বিষয় না । ভ্যাকসিন বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক_করুন । করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে বেশ ভালভাবেই জুড়ে বসেছে ।

বাংলাদেশে কি এর প্রভাব পড়বে

করোনা ভাইরাস ইন্ডিয়া তে অনেক বেড় গেছে । বাংলাদেশ যেহুতু প্রতিবেশি দেশ তাই এর প্রভাব বাংলাদেশে পড়া টা স্বাভাবিক । এমনিতেই বাংলাদেশের মানুষ কে বোঝানোই যায়না যে এই করোনা ভাইরাস কত টা ভয়ংকর । ইন্ডিয়ার মত বাংলাদেশ এ  ও এরকম কিছু হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকেই । কারন বাংলাদেশে অনেক লোকজন আছে যারা মাস্ক পরতেই চায়না এবং কোন শাস্থবিধি ও মেনে চলতে চায়না ।

আসুন আমরা তাদের কে কিছু দিয়ে সাহায্য করতে না পারলে ও   তাদের জন্যে আল্লাহর কাছে দোয়া করবো ।

আপনার পরিবার ও বন্ধুবান্ধব কে সচেতন করতে পোস্ট টি আপনার টাইম-লাইনে শেয়ার করে রেখে দিন ।

বাংলাদেশে লক-ডাউন দিয়ে ও কোন লাভ হয়না । মানুষের চলাচল বন্ধ করা যায়না লক-ডাউন দিয়ে । বিস্তারিতঃ
লকডাউনে মানুষের চলাচল বন্ধ নেই বাংলাদেশে

Leave a Comment

Your email address will not be published.