লকডাউন এ মানুষের চলাচল বন্ধ নেই ।

লকডাউন এ মানুষের চলাচল বন্ধ নেই ।

বাংলাদেশে কড়া লকডাউন শুরু হয়েছে  ৩ দিন আগে । কিন্তু লকডাউন এ মানুষের চলাচল বন্ধ নেই ।

বাংলাদেশে প্রথম করনা ভাইরাস শনাক্ত হয় ২০২০ সালের শুরুর দিকে । আজ এক বছর পার হয়ে গেলো তবু ও পরিস্থিতির কোন উন্নতি হলোনা । যত দিন যাচ্ছে বাংলাদেশ সহ  সারা বিশ্বে  করনা পরিস্থিতি ভয়াবহ হচ্ছে । গত বছর করোনা সংক্রমন কমাতে সারাদেশব্যাপি ১ মাসের কঠোর লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছিলো , তাতে কিছু টা স্বাভাবিক হলে ও পরবর্তীতে পরিস্থিতি  দিন দিন খারাপ হয়ে গেছে ।২০২১ সালের প্রথম দিকে করনা সংক্রমন কিছু টা কম ছিলো কিন্তু মারচ-এপ্রিল এর দিক এসে কোরনা আবার ও ভয়ংকর রূপ ধারন করে ।

 

যানবাহন চলাচল

রাজধানীতে কঠোর লকডাউনের ৩য় দিনে যানবাহন এর চলাচল বেড়েছে ।শুধু যানবাহনের চলাচল বেড়েছে তাই ই না যানবাহনের সাথে সাথে মানুষের চলাচল ও ব্যাপক ভাবে বেড়েছে । এই লকডাউনে ও ঢাকার বিভিন্ন সড়কে দেখা যাচ্ছে যানযট । যানযট এর মূল কারন হচ্ছে পুলিশ এর চেকপোস্ট । কেউ অকারনে রাস্তায় বের হচ্ছে নাকি সেটার জানার জন্যেই মূলত এই চেকপোস্ট । পুলিশ চেকপোস্ট এ সব লোকজন বাহিরে আসার কারন দেখাতে পারছে তা কিন্তু নয় । কিছু মানুষ অকারনে বাহিরে বের হচ্ছে । এই কঠোর লকডাউন এ মানুষের চলাচল বন্ধ নেই ।গাজিপুর সহ বিভিন্ন জায়গায় সবচেয়ে বেশি দেখা যাচ্ছে ব্যাটারিচালিত অটোরিসকা এবং পায়েহাটা মানুষের ঢল । এদের কেউ ই মাঞ্ছেন না স্বাস্থ্যবিধি এবং শারিরিক দূরত্ব  । গাজিপুরে বেশিরভাগ মানুষের মুখে দেখা যাচ্ছেনা মাস্ক ।

পুলিশ কি বলে

এই বিষয় নিয়ে পুলিশ এর সাথে কথা বললে তারা বলেন “ব্যাঙ্ক , পোশাক-শিল্প কারখানা এছারা ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান” খোলা রাখার কারনে রাস্তায় বাড়ছে মানুষের চলাচল । রাস্তায় বের হওয়া লোকজন  এর বেশির ভাগ ই মাস্ক ব্যাবহার করছেনা এই বিষয়ে পুলিশ এর কাছে জানতে চাইলে তারা বলেঃ বাংলাদেশের প্রায় মানুষ খুব ই অসচেতন তারা মাস্ক পরা নিয়ে উদাসিন । কেউ যদি মাস্ক না পরে রাস্তায় বের হয় তাকে যদি প্রশ্ন করা হয় কেনো মাস্ক পরেন  নি ? এর উত্তর আসে এরকম  গরম লাগছে তাই খুলে রাখলাম , এতক্ষণ পরেই ছিলাম মাত্র খুললাম , নিশ্বাস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তাই খুলে রাখলাম , কেউ বলে মাস্ক কিনতেই বের হইছি আবার কেউ বলে বাসায় রেখে আসছি । সারা বিশ্বের দিকে তাকিয়ে দেখলে দেখা যায় এই মহামারির ভয়াবহতা কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ কিছুই মনে করেনা । সরকার এতকিছু নিয়ম -কানুন করছে তারপরে ও লকডাউন এ মানুষের চলাচল বন্ধ নেই ।

 

এটা কি লকডাউন ?

লকডাউন বলতে আমরা বুঝি  জরুরি সেবা ছাড়া সবকিছু বন্ধ রাখতে হবে । কিন্তু ঢাকার চিত্র অনেক টাই আলাদা । এখানে সব পোশাক-শিল্প কারখানা খোলা রেখে লকডাউন দিয়েছে । এটা আসলেই একটা হাস্যকর বিষয় ।  এই লকডাউন এ সবচেয়ে সমস্যায় পড়েছে পোশাক-শিল্প কারখানার শ্রমিক রা ।  তাদের সমস্যা হচ্ছে কর্মস্থল এ যেতে। গাজিপুরে বিভিন্ন ফ্যাক্টরি থেকে জানা গেছে ফ্যাক্টরির মধ্যে মানা হচ্ছেনা কোন নিয়ম-কানুন । কেউ ব্যাবহার করছেনা মাস্ক , আর ব্যাবহার করলে সেটা থুতনির নিচে । এই মহামারির মধ্যে শুধু সরকার কে নয় নিজেদের সচেতন হওয়া টা বড় বিষয় ।

 

এই লকডাউনে অনলাইনে ইনকাম

এই লকডাউনে কারোর ই ঘরে বসে থাকতে ভাল লাগেনা । সবায় চায় ঘরে বসে কিছু ইনকাম করতে । আর  তার সুযোগে বিভিন্ন কোম্পানি লোভনীয় ইনকাম এর  অফার দিয়ে তাদের সাথে প্রতারনা করে আসছে ।

বিস্তারিত পড়তে ক্লিক করুন

অনলাইন থেকে নিরাপদে ইনকাম করতে চাইলে আপনি এই লিঙ্ক থেকে ব্লগ টি পড়ে নিন ।

আশা করি আপনি প্রতারিত হবেন না ।

 এখান থেকে  ক্লিক করে পড়ে নিন